মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

চলনা বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

চলনা বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৫৪ সনে চলনা বালিকা প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসাবে চলনার মাটিতে জন্ম লাভ করে। ১৯৭৩ সনে বিদ্যালয়টি জাতীয়করন করা হয় এবং এ বিদ্যালয়টি অত্যমত্ম সুনামের সাথে চলনা গ্রামে দাড়িয়ে আছে।

চলনা বালিকা সরকারি  প্রাথমিক বিদ্যালয়টি মেয়েদের শিক্ষা বিসত্মারের জন্য তৎকালীন জ্ঞানীগুনী ব্যক্তিদের আপ্রাণ প্রচেষআয় চলনা গ্রামে প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতার নাম মাওলানা মোঃ রোসত্মম আলী সাহেব। পরবর্তীতে জনাব মোঃ আলহাজ্ব বাসির উদ্দিন মোঃ জালাল উদ্দিন, মোঃ মহিউদ্দিন ও মাওলানা লফি সাহেব প্রমুখ ব্যক্তিবর্গের প্রচেষ্টায় বিদ্যালয়টির উন্নতি সাধন হয়। বিদ্যলয়টিতে ছেলেদেরও লেখাপড়ার সুযোগ দেওয়া হয়।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
বাসনা বেগম 0 ueopalash@gmail.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ সাইফুল হক খান ০১৯২৩-১৬৭১৭০ ueopalash@gmail.com
আব্দুল রাজ্জাক মিয়া ০১৯১৮-৮১৫০৪৮ ueopalash@gmail.com
ইসরাত জাহান ০১৭৩৮৯০৯৯১৩ ueopalash@gmail.com
রাজিয়া সুলতানা ০১৭২২-৪৩৮৩৬০ ueopalash@gmail.com
পারভীন সুলতানা ০১৯২৪৯০৩৬৭৬ ueopalash@gmail.com

শিশু শ্রেণী- ২৬জন, ১ম শ্রেণী- ৫৪ জন , ২য় শ্রেণী- ৩৪ জন ৩য় শ্রেণী- ২৮ জন, ৪র্থ শ্রেণী- ৪০জন, ৫ম শ্রেণী- ৩৩জন।

৮০%

১২জন সদস্য নিয়ে কমিটি গঠিত হয়। এর মধ্যে সদস্য সচিব পদাধিকার বলে প্রধান শিক্ষক।

২০০৯ সালে সমাপনী পরীক্ষার পাশের হারঃ ১০০%

২০১০ সালে সমাপনী পরীক্ষার পাশের হারঃ ৯৮%

২০১১ সালে সমাপনী পরীক্ষার পাশের হারঃ ১০০%

২০১২সালে সমাপনী পরীক্ষার পাশের হারঃ ১০০%

২০১২ সালে সমাপনী পরীক্ষার পাশের হারঃ ৮০%

মোট সুবিধাভোগী পরিবারের সংখ্যা ৮৫ জন।

ঝড়ে পড়ার হার কমেছে। ছাত্র উপস্থিতি বৃদ্ধি পেয়েছে।

১০০% উপস্থিতি, ১০০% ভর্তি এবং ১০০% পাশের হার নিশ্চয়তার প্রদানের ব্যপক পরিকল্পনা হাতে নেওয়া হয়েছে।

উপজেলা থেকে বিদ্যালয়ে পাকা রাসত্মার যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে।